ঢাকাসোমবার , ৯ আগস্ট ২০২১
  1. ইসলাম
  2. ছোট গল্প
  3. বই
  4. বিজ্ঞান-ও-প্রযুক্তি
  5. বিনোদন
  6. বিশ্বকোষ
  7. ব্যবসা
  8. ভিডিও
  9. ভ্রমণ
  10. মার্কেটিং
  11. মোটিভেশনাল স্পিচ
  12. স্বাস্থ্য বিষয়ক
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কওমি ও আলিয়া মাদ্রাসার পার্থক্য কি

প্রতিবেদক
Yeasin Ahmad
আগস্ট ৯, ২০২১ ১:২৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কওমি ও আলিয়া; খারেজি ও দাখেলি….
পুরাতন আলাপটা নতুন করে করি৷ জানা কথা বারবার পড়লে আর অধ্যয়ন করলে ভেতরে বসে যায়৷ আরবীতে প্রবাদ আছে ইযা তাকাররারা তাক্বরারা ফিল কলব৷ বারবার বললে অন্তরে স্থির হয়৷ যাইহোক লম্বা কথায় যাচ্ছিনা৷ ঘুরিয়ে পেঁচিয়েও বলবো না৷ যারা গালি দেবার দিবেন৷ যারা মন্তব্য করার মন্তব্য করবেন৷ একজন তালিবুল ইলম হিসেবে আমি তুলে ধরতে চাই৷

বাংলাদেশেই একটা সময় কওমি ও আলিয়ার আলিমদের মাঝে এত তফাৎ ছিলনা; যতটা তফাৎ আপনি আমরা বর্তমানে দেখছি৷ কেমন তফাৎ সেটা লম্বা আলোচনায় না গেলেও চলবে আশা করি৷ শুরু থেকে কীভাবে দুটো শিক্ষাব্যবস্থা আলাদা হয়েছে সেটা হয়তো আপনারা হযরত সাইয়েদ সালমান নদভী হাফিজাহুল্লাহর “শিক্ষা বিভক্তি দূর করতে হবে” বইটিতে পাবেন ইনশাআল্লাহ৷ সেটা পড়ার অনুরোধ রইল৷

০১. আমরা কওমি ও আলিয়ার শিক্ষার্থী ও শিক্ষক পরস্পরকে বন্ধু মনে করিনা৷ ভাই মনে করা তো দূর কী বাত৷ সে তার মত আছে আমি আমার মত থাকবো৷ সে যদি আমার কাছে আসে আমি তার কাছে যাবো৷ এই মনে করার গভীর হেতু সম্পর্কে আমার জানা নেই৷ তবে সামনের কথাগুলো থেকে হয়তো কিছুটা আঁচ করা যাবে৷

০২. বাংলাদেশের চারজন প্রসিদ্ধ আলেম যথাক্রমে শাইখ আমীমুল ইহসান মুজাদ্দেদী রহ. , খতীব উবাইদুল হক রহ. ও শাইখ মুহিউদ্দীন খাঁন রহ. ড. ফজলুর রহমান হাফিজাহুল্লাহু তাঁরা প্রত্যেকেই স্ব-স্ব স্থানে থেকে স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে আছেন৷ এবং তাঁরা তাদের অসংখ্য খেদমতের মধ্য দিয়ে কিতাবের পাতায় পাতায় ইলমের খোরাকে অামাদেরকে ঋনী বানিয়ে যাচ্ছেন৷ তাঁরা ৪ জনই আলিয়া মাদরাসার শিক্ষার্থী ছিলেন৷ কিন্তু তাঁদের সাথে আমাদের কওমি মাদরাসার উস্তাযদের সম্পর্ক অত্যন্ত গভীর ছিল৷

০৩. বর্তমানে আলিয়া মাদরাসার ছাত্র ছাত্রীদের আমল- আখলাকের দিক থেকে সবচেয়ে ভালো মাদরাসা সিদ্দিকিয়া দারুন নাজাত আলিয়া মাদরাসা ও ছারছিনা আলিয়া মাদরাসা ও চরমোনাই আলিয়া মাদরাসা প্রাধান্য লাভ করবে বলে আমার বিশ্বাস৷ এই দুই প্রতিষ্ঠানের অনেক ছাত্রের সাথে আমার পরিচয় রয়েছে৷ তাঁদের ইলমী ও আমলী অবস্থান সন্তোষজনক৷ সবারই একরকম নয়৷ কিন্তু তবুও আমাদের সাথে তাদের সম্পর্ক কমই রয়ে গেছে৷ তাঁরা আমাদের সাথে মিশেনা আর আমরা তাদের সাথে মেশার চেষ্টা করিনা৷ এই দুই প্রতিষ্ঠান ছাড়া আলিয়ার প্রায় মাদরাসাগুলোর শিক্ষার্থীদের বেশ ইনহেতাত হয়েছে৷ কিন্তু এটা আমার মূল উদ্দেশ্য নয়৷ বরং দূরত্বটা মূল পয়েন্ট৷

০৪. আজকাল আমাদের মাদরাসা থেকে যখন কোন ছাত্র আলিয়াতে বা স্কুলের কোন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে যায় তখন আমাদের মাদরাসগুলো থেকে তেমন সাপোর্ট পায়না৷ হ্যাঁ কওমি মাদরাসায় পড়াবস্থায় না যাওয়ার সুযোগ দেয়াটা অনুচিত নয় বরং তার জন্য সেটা কল্যাণকর৷ কিন্তু অনেকসময় ছাত্রের গার্ডিয়ান জেনারেল হওয়ায় তাকে পরীক্ষা দিতে বাধ্য করে৷ তখন তো সে নিরুপায় হয়ে যায়৷ তারপর যখন সে আলিয়াতে বা স্কুলে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে তখন তাকে বিদায় দেয়া হয়৷ আর সেই ছাত্র এই অবস্থার কারণে অন্যদিকে বর্তমান আলিয়ার পরিবেশের কারণে ভিন্ন মানসিকতা লালন করে বেড়ে উঠে৷ একটা সময় সেই ছাত্রটিই কওমি বিদ্বেষী হয়ে উঠে৷ দিন যত যাচ্ছে ততই এমন অবস্থা বেশি বেশি তৈরী হচ্ছে৷ এরপরেও কিন্তু কওমি মাদরাসার অনেক ছাত্র গার্ডিয়ান বা পারিপার্শ্বকতার কারণে আলিয়ামুখী হচ্ছে সামনেও হবে৷ আর যদি আমাদের কিছু ভাই আলিয়াতে পড়েই সেখানেই শিক্ষকতার মত মহান দায়িত্ব পালন করেন তাহলে তো আমাদের কোন অসুবিধা নেই৷

০৫. একটি এলাকার সবাই তো আলিয়ায় পড়ুযা হবেনা৷ সবাই কওমিয়ান হবে৷ বরং তারা মিশ্রিত ছিল মিশ্রিতই থাকতে হবে৷ কিন্তু দুই পেশে চলার ফলে একজনের প্রতি অপরজন বিমুখী হয়৷ যার ফলে সামাজিক কোন কল্যাণকর কাজ করতে গেলে একসাথে মিলে কাজ করাটাও দুস্কর হয়ে যায়৷

০৬. আমরা কওমি মাদরাসায় পড়েছি, খেদমত করছি এবং সামনে করবো ইনশাআল্লাহ৷ তারা আলিয়া মাদরাসায় পড়েছে, পড়ছে সামনেও পড়াবে ইনশাআল্লাহ৷ আলিয়া খৃস্টানদের তৈরী৷ আলিয়া মানেই খালিয়া৷ আলেয়ার আলেম দুনিয়ার ফালতু এসব কথা বলা থেকে নিজেকে পরিহার করতে হবে৷ কারণ তারা যখন আমাদেরকে এমনভাবে গালি দিবে বা কটুক্তিমূলক কথা বলবে সেটাও আমরা সহ্য করবো না৷ তারা সরকারী চাকুরী করছে তো কী হয়েছে দিনশেষে তো আমরা তাদের কারো সন্তান না হয় আত্মীয়স্বজনদের কেউ৷ তাহলে গালি দিয়ে দূরত্ব তৈরী করে লাভ কী?

০৭. আলিয়া মাদরাসার পাঠ্যসূচী যেমনই বহাল রয়েছে তেমনভাবেই যদি তারা ভালোভাবে পড়তে পারে৷ তাহলে সে একজন দক্ষ আলেম হবে৷ এটা শুধুই মুখের কথা নয়৷ বরং বাস্তবতা৷ আর বর্তমানে আপনি দারুল উলূম দেওবন্দ ছাড়া বিশ্বের অন্যন্য ভালো প্রতিষ্ঠানে পিএইচ ডি করতে চাইলে অবশ্যই আলিয়া বা স্কুলের সার্টিফিকেট লাগবে৷ তা ছাড়া তো বিদেশী প্রতিষ্ঠানের স্বপ্নও দেখা যায়না৷ আর হ্যাঁ উভয়ের মধ্য কেউ যদি সমন্বয় করে তাহলে সে আরো ভালো করবে বলে আশাবাদী৷

সর্বশেষ কথা হলো, আমরা কওমি আলিয়ার যত শিক্ষার্থী বা শিক্ষক রয়েছি৷ পরস্পরকে পরস্পর মূল্যায়ন করি৷ পরস্পরকে ভাই ভাই বলে আপনিয়ে নেয়ার সর্বাত্মক চেষ্টা করি৷ আমাদের বর্তমান সমাজের চিত্রে শুধুই মতবিরোধ অার মতভিন্নতা৷ আর এই মতপার্থক্য তো পূর্বেও ছিল এখনো আছে সামনেও থাকবে৷ কিন্তু আমাদের ইখতেলাফ থাকা সত্তেও অন্তরগুলো যেন অপর ভাইয়ের জন্য নরম ও কোমল থাকে৷ একজন যেন অপরের প্রতি আন্তরিক হয়৷ গালি দেয়া, অপবাদ দেয়া ও সমালোচনা করা তো নীচু মানুষদের কাজ৷ আমরা সেগুলো পরিহার করে কি নিজেদের দিলে জায়গা দিতে পারিনা? বড়দেরকে শ্রদ্ধা করতে পারিনা৷ চেনা অচেনাদেরকে অন্তত সালাম তো দিতে পারি৷

অনেক কথা লেখেছি৷ মানুষ হিসেবে আমার ভুল হওয়াই স্বাভাবিক৷ ত্রুটি থাকলে মার্জিত ভাষায় ধরিয়ে দিবেন৷ জাযাকুমুল্লাহ৷

 

লেখাটি জনাব ইব্রাহিম হাবিবের ফেইসবুক প্রোফাইল থেকে অনুমতি সাপেক্ষে হুবহু পাঠকের জন্য তুলে ধারা হয়েছে।

Facebook Comments